শ্যাম বিশ্বাস, উত্তর ২৪ পরগনা: স্বরূপনগর ব্লকের সীমান্তবর্তী বিলবল্লীতে খাস জমিতে দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয় লোকেরা দাবি করেছিল যে এখানে একটি ফিশারি হাব হওয়া উচিত। সেই দাবির সাথে সামঞ্জস্য রেখে মৎস্যমন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিনহা এখানে সফর করেছিলেন।

তারপরে তিনি এখানকার লোকদের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন যে এখানকার জেলেদের জন্য সম্পূর্ণ জৈব পদ্ধতিতে দেশীয় প্রযুক্তি দিয়ে একটি ফিশারি প্রকল্প করা হবে।

তিনি বলেন একদিকে এখানে যেমন পরিকাঠামো ভাল হবে এবং অন্যদিকে অনেক লোকের কর্মসংস্থান হবে।

শুক্রবার দুপুর ২ টায় মৎস্যমন্ত্রী চন্দনাথ সিনহা, জেলা সভাপতি ও বিধায়ক বিনা মণ্ডল, কৃষ্ণা গোপাল বন্দ্যোপাধ্যায়, রামেন সরদার, উত্তর চব্বিশ পরগনার জেলা মৎস্য কর্মকর্তা দীপক লাহিড়ী এবং মহকুমা শাসক মৌসাম বন্দ্যোপাধ্যায় শুক্রবার দুপুরে এর শুভ সূচনা করেন।

মন্ত্রী বলেন এই ফিশারি হাব অনেক মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করবে। ফিশারি হাবকে ঘিরে ব্যবসায়ের সুযোগ তৈরি হবে। যা সীমান্তের মানুষের জন্য নতুন কর্মসংস্থানের দিকে পরিচালিত করবে।

তিনি আরও বলেন যে মাছের চাষ সম্পূর্ণ জৈব পদ্ধতিতে করা হবে যা বিদেশী বাজার দখল করবে। এভাবে এখান থেকে মাছগুলি দিল্লি, বোম্বাই, মহারাষ্ট্র, গুজরাটের মতো জায়গায় রপ্তানি করা যেতে পারে পাশাপাশি এবার আমরা এখানের উৎপাদিত মাছ জার্মানি, রাশিয়া-আমেরিকাতে রপ্তানি করতে পারব। সেখানকার লোকেরা কম দামে সম্পূর্ণ জৈব পদ্ধতিতে চাষ করা মাছ পাবেন।

একদিকে এখানে চাষ করে আয় করা সম্ভব হবে।অন্যদিকে এই কেন্দ্রকে কেন্দ্র করে প্রচুর কর্মসংস্থান হবে।