কোচবিহার:এ বছরও করোনা আবহের কারণে রথে নয়, যন্ত্রচালিত সুসজ্জিত যানে সওয়ারী হবেন মদনমোহন।
করোনা আবহে রাজ আমলের প্রথা মেনে মদনমোহন মন্দিরে পুজো হলেও, এবারও করোনা আবহের কারণে মদনমোহনের রথ যাত্রায় দর্শনার্থীরা গত বছরের মত এবছরেও রথের দড়িতেও লাগাম টানা হয়েছে। করোনা আবহের কারণে প্রাচীন কাঠের রথের বদলে থাকছে যন্ত্র চালিত সুসজ্জিত বাহন।

সোমবার প্রথা মেনে জেলা শাসক তথা দেবত্র ট্রাস্ট বোর্ডের সভাপতি ও রাজ দুয়ার বক্সী রথের প্রতীকী দড়ি টেনে রথ যাত্রার সূচনা করবেন। তারপর গুঞ্জবাড়ি ডাঙ্গরাই মন্দিরে যাবেন মদনমোহন। সেখানে সাত দিন মদনমোহনের পুজার আয়োজন করা হবে। করোনা আবহের কারণে এবছর ডাঙ্গরাই মন্দিরে করোনা বিধি মেনে দর্শনার্থীদের প্রবেশের অধিকার থাকছে। দর্শনার্থীদের আবেগের কথা মাথায় রেখে থাকছে ফল, সন্দেশ ও অন্ন ভোগের ব্যবস্থা। তবে ডাঙ্গরাই মন্দির প্রাঙ্গণে মেলা ও কীর্তন সহ সমস্ত ধর্মীয় অনুষ্ঠান গত বারের মত এওবছরও বাতিল করেছে দেবত্র ট্রাস্ট বোর্ড কতৃপক্ষ। সেখানে ৭ দিন থাকার পর মাসির বাড়ি ডাঙ্গরাই মন্দির থেকে আগামী ১৯ শে জুলাই বৈরাগী দিঘির মদনমোহন মন্দিরে ফিরবেন মদনমোহন দেব।

প্রতিবছর কাঠের রথে দর্শনার্থীরা রথের দড়ি টেনে শোভাযাত্রার মাধ্যমে মদনমোহন মন্দির থেকে গুঞ্জবাড়ির বাড়ির ডাঙ্গড়াই মন্দিরে নির্দিষ্ট পথে রথে করে দর্শনার্থীরা দড়ি টেনে নিয়ে যেত। ৭দিন পর একই ভাবে সেই রথ মদনমোহন মন্দিরে নিয়ে আসা হত। কিন্তু করোনা আবহের কারণে গতবছরের মত এবছরও মদনমোহনের রথ যাত্রা রাজ আমলের নিয়ম মেনে হলেও চিরাচরিত রথের বদলে যন্ত্রচালিত সুসজ্জিত যানে মাসির বাড়ি যাবেন মদনমোহন দেব।

দেবত্র ট্রাস্ট বোর্ড সূত্রে জানাগিয়েছে, রথের দড়ি টানতে প্রচুর ভক্ত সমাগম হয়। সে কারণে দর্শনার্থীদের ভিড় এড়াতে করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে এ বছরও এধরণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেবত্র ট্রাস্ট বোর্ড।