কোচবিহার: ভোটের ফল ঘোষণার পর রবিবার রাত থেকেই কোচবিহারের বিভিন্ন জায়গায় ব্যাপক গন্ডগোল শুরু হয়। অভিযোগ অনেকের বাড়িঘর ভেঙ্গে তছনছ করে দেওয়া হয়। বাড়িতে থাকা টাকা পয়সা গৃহপালিত পশু, সমস্ত কিছু নিয়ে যান বলে অভিযোগ।
বাড়ির পুরুষরা ভয়ে এলাকা ছাড়া। এমনকি এলাকায় আরো যে সমস্ত বিজেপি কর্মী তাদের উপরও নেমে আসছে চরমভাবে অত্যাচার বলে অভিযোগ। সোমবার সকাল থেকে ব্যাপক গন্ডগোল শুরু হয় বলে অভিযোগ। সবক্ষেত্রেই বিজেপি কর্মী সমর্থকরা আক্রান্ত হচ্ছেন বলে জানানো হয়।

রাজ্যে ব্যাপক সংখ্যা গরিষ্ঠতা নিয়ে ক্ষমতায় ফিরেছে তৃণমূল কংগ্রেস। কিন্তু কোচবিহার জেলার ৯ আসনের মধ্যে ৭ টিতে পরাজিতা হয় তৃণমূল। কিন্তু কাল বিকেলের পর থেকে ভোটের ফলাফল বেড় হতেই নানা দিক থেকে ভাঙচুর মারামারির খবর আসতে থাকে। অভিযোগ, বিজেপির বহু দলীয় কার্যালয় ভাংচুর করে দখল নেওয়া হয়েছে। বিজেপি কর্মী সমর্থকদের বাড়ি ভাংচুর লুটপাট করা হয়েছে। তাদের বহু কর্মী নিগৃহীত হয়েছেন। অনেকেই বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছেন।

জেলার সব জায়গা থেকেই রাজ্যের শাসক দলের বিরুদ্ধে ওই সন্ত্রাসের অভিযোগ উঠলেও সব থেকে খারাপ পরিস্থিতি শীতলখুচি এলাকায়৷ বিজেপি নেত্রী মালতী রাভার অভিযোগ, পুলিশ প্রশাসনের কর্তারা ফোন ধরছেন না। তাই দুপুর ২টা নাগাদ দলের সদ্য জয়ী বিধায়কদের নিয়ে বৈঠক করে কর্মীদের পাশে দাড়াবেন বিজেপি নেতৃত্ব বলে জানা যায়।