শ‍্যাম বিশ্বাস, উওর ২৪ পরগনা: উওর ২৪ পরগনার বসিরহাট মহাকুমার টাকি পৌরসভার পাচ নম্বর ওয়ার্ডের ইছামতীর ধারে রাজা মানসিংহ রোডের ধারে পাঁচ বিঘা জমির উপরে ইকো ট্যুরিজম পার্ক। করোনা মহামারীর যেরে ঘরবন্দি হয়ে পড়েছিল কচিকাঁচা থেকে বড়রা। ইট-পাথরের কংক্রিটের শহর ছেড়ে একটু মুক্ত বাতাসে প্রকৃতির সান্নিধ্যে ইকোট্যুরিজম পার্কে ভিড় জমাচ্ছেন পর্যটকরা।

পার্কে রয়েছে বিভিন্ন প্রজাতির রংবেরঙের টিয়া পাখি, বুনোহাঁস, মুরগি, খরগোশ একাধিক পাখি। এছাড়া অ্যাকুয়েরিয়াম বহু প্রজাতির মাছ শোভা পাচ্ছে, যেমন গোল্ডফিশ, ক্যাটল ফিস, অক্টোপাস, রেড ইলেকট্রিক সহ বিভিন্ন রঙের মাছ ট্যুরিজম রয়েছে। বিভিন্ন রকমের রং বেরংয়ের ফুলের বাহার,তারপর জলে ভ্রমণের জন্য রয়েছে জলযান, আর সেই জলযানে উঠে নিজের ইচ্ছামত জলে ভ্রমণ করা পর্যটকদের কাছে এক বাড়তি পাওনা। এছাড়া কচি কাচাদের জন্য রয়েছে বিভিন্ন খেলার রাইড, তাই টাকি ইকো ট্যুরিজম পার্ক একদিকে প্রকৃতির মুক্ত বাতাস নিতে এলোমেলোভাবে ঘুরে বেড়ানো। অন্যদিকে জলযান বাহারি ফুল বিভিন্ন প্রজাতির পাখি, মাছ, দেখতে পর্যটকদের ভিড়।

দীর্ঘ লকডাউনের পর মুক্ত বাতাসে প্রকৃতিক শ্বাস নিতে ইকোট্যুরিজম পার্কে ভিড় জমাচ্ছেন ভ্রমণপিপাসু পর্যটকরা। এপার বাংলা ওপার বাংলার মাঝখান দিয়ে বয়ে গেছে ইছামতি নদী, সেই নদীর কলরব ও বিভিন্ন প্রজাতির পরিযায়ী পাখির ডাকে মুগ্ধ করেছে পর্যটকদের।

রাজ্য তথা রাজ্যের বাইরের বিভিন্ন প্রান্তে থেকে বহু ভ্রমণ পিপাসু মানুষ একবার চোখের দেখা দেখতে ছুটে আসছে এইটাকি ইকো-ট্যুরিজম এ, এখানে বহু সরকারি-বেসরকারি হোটেল রেস্তোরাঁ ও লজ্ রয়েছে, খুব কম খরচে সুন্দর একটি ভ্রমণ সেরে নেওয়া যায়। জলযানে উঠলেই এক দুই মিনিটের মধ্যে নিজের চোখে দেখা যাবে বাংলাদেশ, দেখা যাবে বাংলাদেশের অবদার ভেরির উপরে ঘুরে বেড়াচ্ছে বাংলাদেশের সাধারণ মানুষ। ইছামতি নদীর বুকের উপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে দুই দেশের নৌকা, দেখলেই বোঝা যাবে নৌকায় লাগানো দেশের জাতীয় পতাকা। এমন দৃশ্য ভারতবর্ষে আর কোন প্রান্ত থেকে দেখা যায় কিনা জানা নেই বলে জানান পর্যটকেরা।